Wednesday, 30 January 2013

Winter and things I love about it....

It is cold in Kolkata. I still get to hear jokes like “Oshobbho temperature, aar koto niche naambe??” ('tum bade woh ho' temperature, aur kitna niche jaogey?) or “It’s so cold here that I am farting snowflakes”. No, it isn’t that cold, but cold enough for frequent bladder-bursting nature calls, especially during bedtime. And, cold enough for an entire post on winter. So, here it goes…..

1.     Komlalebu (Oranges): They say while listing things, “not exactly in that order”. But I must specifically mention here that, Komlalebu is THE object of desire and undeniably the winner of this list. Eating oranges reminds me of childhood. Baba and I…on a river grass mat on our terrace, with sunshine on our shoulders to make us happy and warm. While he would be busy reading his Anondobajar Patrika, I would peel the orange jacket and savour the bean-shaped carpels.  It’s strange that the reason for liking oranges was not limited to its taste. I loved squeezing its rinds into Baba’s unmindful eyes or spit the seeds from my mouth and play the “let’s-see-how-far-they-go” game. I still love doing both and develop unusual adoration for people who love these too.
Oranges also remind me of picnics. An orange is a must with the breakfast, served in the bus. Dim-Sedhho (boiled egg), Pauruti (bread), Tiffin-cake and an orange.   

2.   Picnics: I love picnics with packed sandwiches, chips, apples, juices and paper napkins. The English khaind of a picnic. I love them.
But when it comes to a Bong picnic (‘Choruibhati’), I will make a ‘Jaa, Simran ji le apni zindagi’ run towards it with all my might. I love the typically Bengally picnic. You wake up early, board a “Reserved” bus with forty friends and relatives, rush towards a window seat/jaanlar dhhar (even though you will not sit for a single second but kneel-down on the seat and play Antakshari throughout the journey), eat the ‘Packet’ (read breakfast) provided to you in the bus itself, which shall be either sweet bun, boiled egg (with the shell) and a banana OR green peas-kachori (sometimes Radhaballabi), aloo-sabzi (aloor dawm) and an orange. If you are lucky, there shall be dessert with the breakfast too: Tiffin cake (worth 3 Rupees)/ Taalshash sondesh (also 3 Rupees, small without raisins)/ Joynogorer mowa (3 rupees, with a raisin).

I love these picnics, where you carry the oven with you, cook lunch at the ‘picnic-spot’, those late lunches, red Mutton curry, badminton, memory games, Housie and Antaksharis. (I love picnics where there are prizes if you win any of the above games).

3.    New Market: This oldest New Market, I think, was born to act as the greatest entertainer, mood-lifter, anti-depressant for all ages and for ages to come. But winter makes it doubly beautiful. Your eyes get glued to her, followed by the heart. If New Market was a human being, it would have been Nafisa Ali. It just gets more beautiful with age.  
During winter, shopkeepers put temporary stalls stuffed with Christmas decorations. Green, red, silver, golden and a riot of all other colours, small and huge Christmas trees, thin and fat Santas, small and huge holes in the pocket, thin and fat bargains.
To add to this charm, the 110 years-old “Nahoums” plays its part. The rich aroma of plumcakes, lemon tarts, chocolate brownies and éclairs, chicken patties and mutton samosas (priced at 1.50 Rupees each). Bliss! If “Nahoums Confectionaries Pvt. Ltd.” was a human being, it would have been Rekha. Ageless, (I wonder if Rekha and Eve were the same person! Since time immemorial, she has maintained herself on an “as is where is” basis), gorgeous, some would find it overrated, but there will be thousands of others who would want to die in its arms. (oh, yes, if Nahoums = Rekha, I am Mukesh Aggarwal)
Lastly but not least-ly, Fairlawn Hotel on Sudder Street. Its Christmas look is to die for, accompanied with alcohol and omelets.

4.    Kolkata – 700 016: Christmas and New Year decorations are the most beautiful in this particular part of Kolkata. Park your heart in this street. The entire road is lined up with lights. In addition to the flowers from Park Street Cemetery, Santa caps, multi-coloured wigs, giant-sized goggles are sold at traffic signals, huge serpentine queues embrace Mocambo and Peter Cat, Duck-festival at Moulin Rogue, Crab-festival at Waldroff, beaf steak and vodka at Oly, “25% off” on the second helping of Blenders’ Pride teamed with loud live music at Trinca’s. I do not know what heaven looks like, but I assume, I can accommodate if it’s something similar to this part of the city.

Trivia 1: Trinca’s is perhaps the ONLY bar in Kolkata (if not in India) where Rabindrasangeet is sung by pub-singers, side-by-side with ‘aaiye meherbaan’ and ‘ajeeb dastan hein yeh’. (A friend and I were eyewitnesses).
Trivia 2: Ah not required, you all know the Trinca’s-Usha Uthhup story.
Trivia 3: Mr. Flury and Mr. Trinca owned a tearoom called “Flury’s and Trinca’s” where Flury’s stands today. Mr. Flury ran away with Mrs. Trinca and their partnership split. :D
Trivia 4: Sorry, this post is about winter and not about Trinca’s. And no, I do not advertise for free. :/

5.    The birthday of Jesus: Christmas automatically leads to the birthday of this great man. I think ‘Borodin’ has very special significance in the lives of Bengalis on account of Jesus being a Bengali himself. A friend says: “It has long been proven that Jesus was a Bengali. He was with his mom for 35 years; he thought his mom was a virgin; his mom thought he was God. Now, these three are common with all Bengali sons. Historians are looking for just one proof before declaring this to the world. Did Jishu use a pashbalish (bolster) while sleeping?”.
Indeed. Jishu was a Bengali. Hence, the enthusiasm.

6.               My birthday: (I decided to give Narcissism some rest. For this particular paragraph, it has taken a back seat. Hence, the smaller font.)  

7.  Visit to the zoo, walks in and around the Victoria Memorial, Rabindra Sarobar (Lake): I love zoos, especially in the winter. During winters, Baba used to take us (us = my brother, my cousins, neighbours’ children, his friends’ children and me) to the zoo every Sunday. We would squeeze into our 1966-make Hindustan Motors Ambassador and zoom towards the zoo. Baba would buy small pouches of nuts and grams for all of us for feeding the monkeys and the elephants. During those days, the elephants were kept in a somewhat open space. They would move their trunks towards the visitors and one could feed them with food and coins. I loved how they could distinguish between the two, by eating the former and depositing the latter with the keeper. I love elephants.

I also love the Victoria Memorial and Maidan during the winters. A walk amidst the fog, steaming hot tea thereafter and realising it for the umpteenth time that I live in the most beautiful city in the universe.  Blessed.
Here is a snapshot of the Maidan winter from one of my favourite photographer-friend. It defines all I am talking about.

8.  Joynogorer mowa, Patali, Nolen gur, Gurer Payesh, Patishapta (Narkoler, Khhirer), Pithhe, Koraishutir Kochuri and Phoolkopir singara: Winter is a foodie’s delight indeed. It reminds me of a friend’s status update:
“Katrina Kaif < Katrina Kaif in a Chiffon Saree < Phoolkopir Singara.” True that!
(I purposely did not translate the above names into English. 1st purpose: Why torture non-Bongs by explaining these? 2nd purpose: I have no clue what they are called in English. Also, literal translations like Peas Kachori or Gobi Samosa can rob them of their taste, food-value and charisma. Like Sandip Ray’s Feluda movies. So….)

9.                   The comparatively long intervals at which arms can be waxed: courtesy: Full-sleeved sweaters.

10.   The New Years and the thirsty-first nights, calendar and diaries: There were times when ‘31st Night’ meant the only night in an entire year when we could go to bed really late. My maternal grandmom would sit with my cousin sister and me, watch the Doordarshan 31st night shows till the end just to see Amir Khan or Madhuri Dixit perform. Yes, star performers performed last.  What joy!!! What immense joy!  

Life has changed. Doordarshan has been replaced by Big Bens, Tantras, Undergrounds, Roxies, house parties and the likes. But there’s one thing that has sustained the child in me. The top 100 songs of the year on the radio on the 31st. What suspense!! The breathless gasp, the wide eyed enthusiasm and a long-cherished dream that their No. 1 would match with my No. 1 song……and the ear-to-ear grin when you find…..yesssssss, that has actually happened! Certain ‘woohoo’ feelings cannot be sufficiently described with a single “Woohoo!”.  This feeling is such. :)

@Calendars and diaries: Like most Bengalis, I have this obsession too. I love collecting calendars and diaries. Till today, I couldn’t figure out why! Once stuffed with calendars, I strategically start placing them. ITC or Taj Mahal Palace desk calendars find their places on the work table (reasons? If I say them loud you will call me cheap). “High on art or creativity” calendars will always be saved for home. The calendars from Xerox shop, grocery shop or jewellery shop (with Shiv-Kali photos) find their places behind the kitchen doors. They are meant for drawing circles around important dates, birthdays, anniversaries, when gas needs to be booked, when the Aquaguard guy needs to be called etcs etcs. Pocket calendars from the Calcutta High Court Bar Association is however the most revered of all …..for the ‘red dates’! (Holidays, that is.) :D

Diaries: There was a time when I used a diary for everything. Writing drab daily incidents, song lyrics, making paper boats and planes (with messages on them), penning love letters, calculating expenses from my pocket money, how much to save for making phone-booth-calls to my newly acquired boyfriend, quotations, list of books I plan to buy this Bookfair, comparative analysis between Amir Khan and Salman Khan in AAA, keeping roses and leaves inside the diary to see what happens to them years later, taking down notes……o God, the list is serpentine. I miss writing diaries. :(
But I never miss collecting them. :D

11.        Weddings, Biriyani at winter-weddings, the joy of wearing heavy silks with ease, relief from sweat- smeared makeup, pullovers and blankets laden with the smell of naphthalene, the warmth of wearing freshly ironed clothes, Poush mela at Shantiniketan, Handicratfs fair at Central Park, Boroline, Glycerin and lipbalms (fruit-flavoured. I use them so that I can eat them. That’s it).

12.  Book fair: Like, I miss the Maidan Book Fair like a missing eye. I mean, even after all these years, the Milan Mela-Book Fair seems a distant stranger with whom I can’t relate. If you love books, you might as well like any book fair, anywhere in the world. But then……well, no proper explanation.
Maidan has stuffed us with heaps of memories. If Durga Pujo is the greatest of Bong festivals, Book Fair would be a close second. I am talking about no-Flipkart, no-Infibeam days. I am talking about days when going to Oxford Bookstore or Crosswords weren’t this popular or even non-existent. We would wait for the Book Fair, keeping a year long list ready. (In case, the pocket didn’t allow all of them, College Street would buffer).
There was this one aspect about Bookfair which induced a thousand butterflies. I felt like a queen when one Ms. Suchitra Bhattacharya or one Mr. Shirshendu Mukhopadhyay signed their books I bought. Yes, you get to meet authors at the Bookfair, speak to them, drool over them, and get their books signed! *fainting again in excitement*.
Apart from books, I loved the Ajkaal and Bartaman stalls, their black and white photographs and their captions/catch phrases. I loved those oil dripping Benfish batter/ butter fries and felt extremely amused at the same long queue every year in front of Mousumi Prakashoni! :D
The excitement, the dust, the crowd, the smell of books punctuated with “Pinky, tumi jekhanei thako, Guild office er shamne chole esho. Bunty tomar jonno opekhha korche” made me feel ecstatic.  

Also, watching happy faces buying books made me insanely happy. I would stare at one particular ‘him’ for hours, when he chose patiently and bought one book each for ALL his family members. ALL. (parents, sibling, cousins, aunts, uncles, best friend, sibling’s special someone, his own girlfriend, girlfriend’s brother, girlfriend’s cousin…….phew! And, himself) He would carry several packets from Dey’s, Anondo, Penguin or Deb Shahityo Kutir, filled with books, filled with happiness. (You guessed it right. Reason #111088 behind “why I married this man”).

On that note, Happy “last days of winter”, everyone!

Monday, 7 January 2013

Cindrellar জুতো....

নতুন বছর ভালো কাটুক। সব্বার।

কিরকম যেন লেখার শেষ লাইনের মত শোনালো! কিন্তু এই মুহূর্তে কোনো তালি-কুড়োনো ওপেনিং লাইন আমার মাথায় আসছে না।  

২০১২-র ওপর আমার খুব অভিমান। এখন বুঝি, মায়ের কথার অবাধ্য হলে মায়ের কিরকম মাথা গরম হতো.....বা অভিমান। :(

চলে যাওয়া বছরটা আসলে অনেকটা আমার মতো Split Personality Disorderবা হিন্দি সিনেমায় অনুপম খেরের রোলগুলোর মতো। কিছু ভালো মানুষের, কিছু একেবারেই ভালো না। অথচ, শুরুর  দিকে বছরটাকে নতুন পাওয়া প্রেমিকের মতো ভালই তো লেগেছিল! বা নতুন কেনা জুতোর মতোকিছুদিন যেতেই হঠাৎ সেই জুতোর মধ্যে একটার হিল গেল ভেঙ্গে।:( ফেলে দিতে গিয়ে, হঠাৎ মনে হলো আহারে, অন্য জুতোটা তো লক্ষ্মী। নিশ্চই, মুখ ভার করে বলছে "আমি তো কোনো দোষ করিনি!আমি জানি, ওকে রেখে দিলে,  একা আর অকেজো হয়েই পড়ে থাকবে। তবুও, ফেলতে পারলাম কই?

তাই ২০১২-র খারাপগুলো ময়লার গাড়িতে তুলে দিয়ে, ভালোটাকে ধুলো ঝেড়ে একটা আলমারিতে তুলে রাখলাম। জানি, ঐটুকু আমার কোনো কাজে আসবে না। কোনদিন। কিন্তু ওই যে, "এইটুকু ভালো।" কিছুটা খারাপের জন্য তো পুরোটাকে ময়লার গাড়িতে তুলে দিতে পারি না। ভালো জিনিসের জায়গা লুকোনো আলমারি। ধাপার মাঠ না। :(    

২০১২-র "ভালোর" ভগ্নাংশের মতো কত যে 'একটা' জুতো, 'একটা' কন্টাক্ট-লেন্স, 'একটা' দুল, ‘একটা মোজা রাখা আমার কাছে। ফেলতে পারিনা। কিছুতেই। :(

জামার হাতায় সেন্টি মুছে, ভালোলাগাগুলো বলি?

১। ভাইয়ের চাকরি পাওয়া, বড় হয়ে যাওয়া: ধুস! এটাও অনেকটা হিল-ভাঙ্গা জুতোর গল্প। পুরোটাই যে ভালো তা না। তবে মোটের ওপর বেশ। নতুন চাকরি লুকিয়ে প্রথম চুমুর মতো। তুলনাহীন থ্রিল। যদিও দিল্লী অতি খাজা জায়গা আর ওখানকার বাঙালিদের বাংলাটাও মোহাম্মদ রফির গলায় রবীন্দ্রসঙ্গীতের মতো .....নীল ভয় দেখায় "আমার বাংলা কিন্তু আস্তে আস্তে ওখানকার বাঙালিদের মত হয়ে যাচ্ছে"। 
"জয়দীপ আমার বর হচ্ছে"/ "আমি একজন উকিল হচ্ছি/ চিঠিটা ভেজে দিস" -র মতন! :D  

[ছিঃ! আমি কি খারাপ, তাই না? (মুনমুন সেনের গলায়) এর ফল আমি পাবো যখন আমার লেখায় লোকে আনন্দবাজারি গুচ্ছ বানান ভুল পাবে।]  

আসল কথা হলো, ভাই কি সুন্দর গুছিয়ে থাকছে। পরিষ্কার রান্নাঘর, পরিষ্কার বাথরুম আর পরিষ্কার বিছানা। আমি কলকাতার ন্যাকা, ভেতো একটা বাঙালি। আর বাঙালি মায়েদের মত "আহারে, বেচারা" টাইপের আদিখ্যেতা আমার মধ্যে ভরপুর। তাই গরম জলে চান, সকালে উঠে বৌর্নভিটা-পান আর কৈলাস কলোনিতে বসে রবীন্দ্রনাথের গান....এই সবকিছু নীলের হচ্ছে কিনা, সেই নিয়ে আমার একটা চিনচিনে মাথা ব্যথা থেকেই যেত। পরে দেখলাম, নাঃ, ছেলে আমার তার এক বন্ধুর সঙ্গে গুছিয়ে সংসার করছে। সঙ্গে রঞ্জাবতী! (এবং রঞ্জার কাঁচের বয়ামের জলও পরিষ্কার!)

@বড় হয়ে যাওয়া: এক শুক্রবার অফিস থেকে ফিরে, "মা, খেতে দাও" না বলে, মাকে বললো: "দু'গ্লাস মদ বাড়ো তো, খাই!"

২। বেড়ানো: হায়দ্রাবাদ, দিল্লি, বম্বে, বেনারস, শান্তিনিকেতন, বকখালি (যেখানে পাঁচ টাকার লাইফবয় সাবান-ওয়ালা বাথরুম)।

বিশেষ দ্রষ্টব্য:

হায়দ্রাবাদ: হানিমুন কাপলের মতো বেল্লেলাপনা, ব্রেকফাস্টেও বিরিয়ানি, রামোজীতে "Dirty Picture"-এর মতো pose দিয়ে ছবি তোলা, আমার 'ওনার' কলেজের দিনগুলো ফিরে দেখা, শহরটাকে লাল রং করে ফেলা (ভীষণ "paint the town red" বাংলায় লিখতে ইচ্ছে করলো) এবং এক পিঠ ট্রেনে চেপে ফেরা।

সেদিন, সারাদিন গোলকন্ডা ঘুরে ক্ষিদেয় জিভ যখন গোড়ালিতে ঠেকেছে....
উনি: ক্ষিদে পাচ্ছে, কি খাবি বল।
আমি: কিছু না পেলে ভিরমিই খাবো।
উনি: যাঃ, ভিরমি একটা খাবার হলো?

আর তারপরই অটোকে অর্ডার: তাজ কৃষ্ণা।
আমি: তুই দেখছি বড়লোক; আগে বলিসনি কেন?
উনি: বড়লোক না, বুদ্ধিমান। নে, বুফের সদ্ব্যবহার কর।   
:) :)

৩। আবার করে রবীন্দ্রসঙ্গীত শেখা, নতুন ক্যামেরা, মটনের লাল ঝোল রান্না:
@ রবীন্দ্রসঙ্গীত: ওর সব থেকে প্রিয় গানটা আমি শিখে ফেলেছি। 

পুরনো গান নতুন করে শিখে উপলব্ধি : "হিমের রাতের ওই গগনের দীপগুলিরে" সহজেই  বড়দিনের গানও হতে পারতো। ('দেবতারা আজ আছে চেয়ে - জাগো ধরার ছেলে মেয়ে, আলোয় জাগাও যামিনীরে....') তেমনি, "মাঝে মাঝে তব দেখা পাই" যেন salary/ পুজোর আগে বোনাস পাওয়ার গান। ('ক্ষণিক আলোকে, আঁখির পলকে তোমায় যবে পাই দেখিতে, ওহে হারাই হারাই সদা হয় ভয়, হারাইয়া ফেলি চকিতে')। :P 

৪। ভালো বই: অনেকগুলো ভালো বইয়ের  মধ্যে যেগুলো সব থেকে ভালো লেগেছে, সেগুলো:

  • রস কষ  সিঙাড়া বুলবুলি মস্তক - চন্দ্রিল ভট্টাচার্য। বর "ওজন কমা" বলেছে, বসের সঙ্গে মনোমালিন্য, প্রিয় বান্ধবীর ঝগড়া বা অযথা-মন খারাপে ঘুম আসছে না....এই সব কটার অব্যর্থ অষুধ "র।ক।সি।বু।ম।" আমার মতে ২০১২-র সেরা মন-ভালো করা বইয়ের একটা। (২০১১-য় যেমন ছিল অর্ণব রায়ের "May I hebb your attention pliss") 'কমরেড মঙ্গল', 'কলিকাতার বর্ণপরিচয়' 'পরের বিজয়া থেকে প্রণাম করব তোমায়' আমার প্রিয় চ্যাপ্টার। 
  • God is not great - Christopher Hitchens. 'Athiesm' -এর ওপর এত ভালো লেখা আমি আগে পড়িনি। 'এত ভালো' বলার কারণ এই বইয়ের লজিক, হিউমার আর উইট। ধর্মকে চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে যে সব লেখা, সেকরম  আমি পড়েছি বহু জায়গায়। কিন্তু এভাবে নাড়া দেয় নি একটাও। রিচার্ড ডকিন্স একটা দারুণ কথা বলেছেন লেখকের ব্যাপারে : "If you are a religious apologist invited to debate with Christopher Hitchens, DECLINE." আমি একমত।  
  • Kitnay Aadmi Thay? - Diptakirti Chaudhuri. "র।ক।সি।বু।ম।"-এর জন্য যা যা লিখেছি সেটা একভাবে এই বইটার জন্যও প্রযোজ্য। তাই, আর লিখছি না। বইটার শুরুতে দুটো লাইন আছে। "Movies should have a beginning, a middle and an end" - Georges Franju, "But not necessarily in that order" - Godard. আমার মনে হয়, এই দুটো লাইন এই বইটার জন্যই লেখা।
  • চিঠি পত্র - রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর। এই বইটা না পড়লে রবীন্দ্রনাথকে জানা অসম্পূর্ণ থেকে যেত আজীবন। নীচের ছবিটা প্যারিস থেকে লেখা স্ত্রীকে একটা পোস্ট কার্ডের। 

সান্তনা পুরস্কার: বুদ্ধদেব গুহর 'খেলা যখন', ১৯৬২ সালের 'উল্টোরথ' পুজোসংখ্যা, অনিরুদ্ধ ভট্টাচার্য ও বালাজী ভিত্তালের 'R. D. Burman: the man, the music', অনুপম খেরের 'The best thing about you is You' 

৫। ভালো বাংলা 'বই': 
  • অনীক দত্তের ভূতের ভবিষ্যৎ।
  • সৃজিৎ মুখোপাধ্যায়ের হেমলক সোসাইটি।
  • ঋতুপর্ণ ঘোষের চিত্রাঙ্গদা।
  • অনিরুদ্ধ রায় চৌধুরীর অপরাজিতা তুমি।
  • সুমন ঘোষের নোবেল চোর। 
  • অদিতি রায়ের অবশেষে।
  • শিবপ্রসাদ মুখার্জী এবং নন্দিতা রায়ের মুক্তধারা।
  • অঞ্জন দত্তের দত্ত vs. দত্ত।
  • রাজ চক্রবর্তীর বোঝে না সে বোঝে না। 
  • সন্দীপ রায়ের যেখানে ভূতের ভয়। 
  • সুদেষ্ণা রায় আর অভিজিৎ গুহর তিন ইয়ারি কথা। (যদিও রিলিসের আগেই এটা বেশ কয়েক বছর আগে দেখা)

৬। ফাজলামি/ রসিকতা: ওই জিনিষটা আমার মতো আপামর বাঙালির কাছে জল বাতাস অক্সিজেন, গোলপার্কের সেকেন্ড হ্যান্ড বই, আরসালানের বিরিয়ানি আর সাউথ পোলের মোগলাইয়ের মতো। বেঁচে থাকার রসদ। এ বছরের সেরা রসিকতা, আমার মতে:
  • মা: "নীল, আজ বাবার ছবি খবরের কাগজে বেরিয়েছে।" ভাই: "কেন, ঘুষ নিতে গিয়ে ধরা পড়েছে?" :D 
  • আমার দেওরের এজেন্সিতে "কেয়ো কার্পিনের" বিজ্ঞাপনের লাইন ভাবতে বলায়, ওর  এক কলিগের বিরক্তি-উক্তি: "কেয়ো কার্পিন লাগাও, বাল হবে।"
  • মাছ মিষ্টি & মোরের এই গানটার শুরুর দিকে একটা নেমপ্লেট দেখায়। "A. K. De".
  • উইস্কীর গ্লাস হাতে দেওরের বন্ধুর স্ত্রীর ছবি। মেয়েটির নাম দেবযানী। ছবির caption: 'Scotch ও দেবযানী' 
  • 'উফ! কি ফিগার! আমি eager!' 
  • হীরক-রানী (নো মোর কমেন্টস)

৭। প্রেম: শাশ্বত চট্টোপাধ্যায়। 'পোতমার্ধে পোবল বিষ্টি, ধৈর্য ধরে বসুন। ইস্টবেঙ্গলের পোসান্ত, মোহন বাগানের পোসুন'... একদম ইস্টবেঙ্গল-মোহনবাগানের মতো হাড্ডা হাড্ডি লড়াইয়ের পর, নওয়াজউদ্দিন সিদ্দিকিকে এক গোলে হারিয়ে এই ভদ্রলোক আমার প্রেমের victory stand-এ দাঁড়িয়ে ঘাম মুছছেন। 

৮। সেরা 'সেরা লিস্ট': আনন্দলোক পত্রিকা। কেন? এই যে....
  • সেরা বাঙালি: পোণব বাবু, আমাদের পেসিডেন্ট।
  • সেরা প্রশ্নচিহ্ন: সচিন তেন্ডুলকার।
  • স্টুডেন্ট অফ দ্য ইয়ার: শ্রীদেবী।
  • সেরা শাশুড়িমা: শর্মিলা ঠাকুর।
  • সেরা হিরো: যুবরাজ সিংহ।
  • সেরা চমক: ভূতের ভবিষ্যৎ। (আমি এখানে স্বস্তিকার নামটাও ঢোকাতে চাই।)
  • সেরা 'টুকি': আরাধ্যা বচ্চন।
  • সেরা ফুলদানি: ক্যাটরিনা কাইফ।
  • সেরা ঝগড়ুটে: মহেশ ভূপতি।
  • সেরা ম্যানিয়া: সাই এবং তার গ্যাংনাম স্টাইল।
  • সেরা ট্র্যাজেডি: 'জোকার'
  • সেরা চলমান অশরীরী: করিনা কপূর।
  • সেরা স্কুপ: উইলিয়াম-ক্যাথরিনের সন্তান।
  • সেরা যাত্রাপালা: রবার্ট প্যাটিনসন এবং ক্রিস্টান স্টুয়ার্ট।
  • সেরা বাঘ: সলমান খান। (না, উনি বাঘ খান না, ওনাকে বাঘ বলা হয়েছে)
  • সেরা আতঙ্ক: বব বিশ্বাস।
  • সেরা ধাঁধা: আদিত্য-রানির বিয়ে।
  • সেরা গোয়ারগোবিন্দ: মহেন্দ্র সিংহ ধোনি। (কিছুতেই চন্দ্রবিন্দু টাইপ করতে পারলাম না 'গো'-এর ওপর।)
  • সেরা কর্পূর: হৃতিক রোশন।
  • সেরা আদিখ্যেতা: KKR-এর IPL জয় (সরকারের বদান্যতায় সোনার চেন, তার বিনিময়ে কপালে চুমু, মনে পড়ে?)
  • সেরা টুকলি: বরফি।
  • সেরা আবিষ্কার: নওয়াজউদ্দিন সিদ্দিকি।
  • সেরা ব্রেকআপ: কংগ্রেস ও তৃণমূল কংগ্রেস।

ওপরের মুহূর্তগুলো ভালো। একটা বাজে বছরের ভালো অংশ। এগুলো ভাবলেই ঠিক মন ভালো হয়ে যাবে। ঠিক যেন হোমিওপাথির ছোটো সাদা গুলির মতো। কিসে কাজ দেবে না ভেবে মুখে দিলেই মন ফুরফুরে!  

বা সিনড্রেলার জুতোর মতো। পায়ে গলালেই আমি আবার রানি!

নতুন বছর ভালো কাটুক। সব্বার।